খান জাহান আলীর মাজার

 লিখেছেনঃ
  জানু. 8, 2020
  765 Views
0 0

বাংলায় ইসলাম ধর্ম প্রচারে যে কয়েকজন অবদান রেখেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম হযরত খানজাহান আলী। তিনি বাগেরহাটে অবস্থিত বিখ্যাত ষাট গম্বুজ মসজিদ নির্মাণ করেন। পুরো বাগেরহাট জেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে নানা ঐতিহাসিক নিদর্শন যার মধ্যে অন্যতম হযরত খানজাহান আলীর মাজার।

১৪৬৯ সালে ভারতের প্রাচীন শহর দিল্লিতে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার পূর্বপুরুষরা তুরস্ক থেকে ধর্ম প্রচারের জন্য এই উপমহাদেশে এসেছিলেন। ১৪ শতকের শেষের দিকে খানজাহান আলী প্রায়  ষাট থেকে সত্তর হাজার শিক্ষিত ও পদাতিক ২ লক্ষ সৈন্য নিয়ে দক্ষিণবঙ্গের রাজা গণেশ কে আক্রমণ করেন। রাজা গণেশের শোচনীয় পরাজয়ের ফলে ১৫ শতকের প্রথমদিকে খানজাহান আলী   এ অঞ্চলে ধর্ম প্রচার ও স্থায়ী বসবাস শুরু করেন।

তিনি সেসময় মোট ৩৬০ টি মসজিদ ও ৩৬০ টি সুবিশাল দীঘি খনন করেন। ১৪৫৯ সালে তিনি বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর সমাধিসৌধর লেখা থেকে জানা যায় তিনি মৃত্যুর আগেই তার সমাধি তৈরি করেছিলেন। বর্তমানে এটি বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের আওতাধীন।

অবস্থান

এটি বাংলাদেশের বাগেরহাট জেলা শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ও ঐতিহাসিক খানজাহান আলী দীঘির উত্তর পাশে অবস্থিত।

অবকাঠামো

এটি মূলত খানজাহান আলী মাজার ও কমপ্লেক্স নামে পরিচিত। সমাধিটি লম্বালম্বি ৬৭.১০×৬৩.০৭ মিটার দেয়াল দ্বারা বেষ্টিত এর বাইরে বর্গাকার ভবনের আয়তন ১৩.০৭×৯.০১ মিটার। এর বাইরে অবস্থিত  চতুষ্কোণ ইটের গোলাকার টাওয়ার। সমাধিটির বাইরে পাথর দ্বারা নির্মিত ২.৪ মিটার পুরু দেয়াল দিয়ে ঘেরা এ মাজার। সমাধিটির ভিতরে প্রবেশের জন্য তৈরি করা আছে চারটি পাথরের প্রবেশপথ যা বর্তমানে বন্ধ।টালি দ্বারা নকশা করা আছে এর দেয়াল। পাথরের উপর খাঁজ কাটা নকশা ও ফারসি শব্দের দোয়া  মাজারের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ।
মাজার সংলগ্ন বড় দিঘিটি এই মাজারের ঐতিহ্য বহন করে। খানজাহান আলী সেইসময় ঠাকুরদিঘী নামে একটি দীঘি সংস্কার করেন।পরবর্তীতে সেখানে শখের বশে একজোড়া কুমির ছাড়েন। তখন থেকে এই কুমিরের বংশধর প্রায় ৭০০ বছর পর্যন্ত দুটি সুপরিচিত নাম কালা পাহাড় ও ধলা পাহাড় নামে পরিচিত ছিল। ২০১৫ সালে   কালাপাহাড় এর শেষ বংশধর মারা যায়। বর্তমানে কুমিরটির মমি বাগেরহাট জাদুঘরে সংরক্ষিত আছে।
কিভাবে যাবেন

ঢাকা কল্যাণপুর গাবতলী মহাখালী থেকে বাগেরহাট যাওয়ার বাস প্রতিদিনই পাওয়া যায়।

বাস

গোল্ডেন লাইন পরিবহন (কল্যাণপুর মোবাইল-01705408500, বাগেরহাট মোবাইল-01733399827)
হানিফ এন্টারপ্রাইজ কল্যাণপুর মোবাইল-01713049541
নন এসি 500 টাকা এসি 1000 টাকা ভাড়া।
অনলাইনে টিকিট বুকিং এর জন্য সহজ-16374
বাস বিডি-16460

ট্রেন

ঢাকা থেকে বাগেরহাট সরাসরি কোন ট্রেন নেই তবে ঢাকা থেকে খুলনা যেয়ে সেখান থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে বাস বা সিএনজি যোগে বাগেরহাট শহরে যেতে পারেন।

ঢাকা কমলাপুর থেকে খুলনা

সুন্দরবনে প্রভাতী ছাঁড়ে 6:20 Am পৌঁছায় 4:20 pm
বন্ধ বুধবার
চিত্রা ছাঁড়ে 7:00 pm পৌঁছায় 05:10 Am
বন্ধু সোমবার
সকল ট্রেনের ভাড়া 525 টাকা

খুলনা থেকে ঢাকা কমলাপুর

চিত্রা ছাঁড়ে 8:40 Am পৌঁছায় 06:20 pm
সুন্দরবন এক্সপ্রেস ছাঁড়ে  8:30 pm পৌঁছায়  5:40 Am

[ বাগেরহাট জেলা শহর থেকে খানজাহান আলীর মাজার তিন কিলোমিটার পথ। রিক্সা বা অটো যোগে  ২০-২৫ টাকা ভাড়ায় খান জাহান আলি মাজার দেখতে যেতে পারে]

কোথায় থাকবেন

বাগেরহাট শহরে থাকার মতো বিভিন্ন মানের হোটেল ও সার্কিট হাউজ রয়েছে।
হোটেল আল আমিন মোবাইল-01966044718
হোটেল ফুয়াদ আবাসিক মোবাইল-01715857362
হোটেল মমতাজ মোবাইল-01777758744
হোটেল অভি মোবাইল-01833742623

[ হোটেলগুলো ভাড়া  ৪০০ থেকে ৫০০০ টাকার মধ্যে পড়বে]

Article Categories:
বাগেরহাট
banner

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।