গোকুল মেধ বা বেহুলার বাসর ঘর

 লিখেছেনঃ
  নভে. 20, 2019
  667 Views
1 0

টুকিটাকি

মনসামঙ্গল কাব্যের দুটি বিখ্যাত চরিত্র বেহুলা লক্ষিন্দর। স্বামী লক্ষিন্দরের জীবন বাঁচাতে বেহুলার যে আকুল প্রয়াস তা বাংলার পাঠক-পাঠিকাদের সবারই জানা। মনসামঙ্গল কাব্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ বেহুলা লক্ষিন্দরের বাসর ঘর। যে ঘর কে ঘিরে রয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। বগুড়া শহর থেকে আট কিলোমিটার উত্তরে  এবং মহাস্থানগড় থেকে দেড় কিলোমিটার দক্ষিনে গোকুল নামক গ্রামে এই বেহুলার বাসর ঘর অবস্থিত। স্থানীয়দের মতে এটি লক্ষিন্দরের মেধ বলেও পরিচিত।

ইতিহাস

ইতিহাসবিদদের মতে আনুমানিক (৮০০-১২০০) মধ্যে এটি নির্মিত হয়। বলা হয়ে থাকে এখানে বেহুলার বাসর হয়েছিল। যা সেন যুগের অনেক পূর্বেকার ঘটনা। তবে বর্তমান গবেষকদের মতে এমনুমেন্ট ৮০৯থেকে ৮৪৭ খ্রিস্টাব্দে দেবপাল নির্মিত একটি বৌদ্ধ মঠ। এখানে বহু গর্তযুক্ত একটি ছোট প্রস্তরখন্ডের সঙ্গে ষাঁড়ের প্রতিকৃতি একটি সর্ণপত্র পাওয়া গিয়েছিল।

এর থেকে ধারণা করা হয় এটি একটি বর্গাকৃতি শিব মন্দির ছিল। বিখ্যাত পর্যটক ইবনে বতুতা হিউয়েন সাং তাদের ভ্রমণকাহিনিতে এটাকে বৌদ্ধমঠ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন বলে জানা যায়। কোন কোন ঐতিহাসিক গ্রন্থ হতে জানা যায় এটি নির্মাণ করা হয়েছিল পুন্ড্রবর্ধন রাজধানীকে বাইরের শত্রু থেকে রক্ষা করার জন্য।

গঠন

ইট নির্মিত এই স্তূপটি পূর্ব-পশ্চিমে অপেক্ষাকৃত দীর্ঘ। এখানে ত্রিকোণ  বিশিষ্ট ১৭২ টি কক্ষ আছে। এ কক্ষগুলোর দেখতে বেশ অস্বাভাবিক এবং এলোমেলো বুনিয়াদ এর বোধগম্যতাকে আরও দুর্বোদ  করে তোলে। এই স্তপটি বাসর ঘর নয়। এই স্তরটির পশ্চিম অংশে আছে বাসর ঘরের প্রবাদ স্মৃতিচিহ্ন।

পূর্ব অংশে রয়েছে ২৪ কোন বিশিষ্ট চৌবাচ্চা সদৃশ স্নানঘর। উক্ত স্নান ঘরের মধ্যে ছিল ৮ ফুট গভীর একটি কূপ। কুপটিতে বেহুলা লক্ষিন্দর মধুনিশি যাপনের পর কুপের ক্ষিতজলে স্নান করে তাতে শুদ্ধতা লাভ করতে সক্ষম হতেন।

অবস্থান

এটি বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগের বগুড়া জেলার বগুড়া সদর থানার গোকুল নামক গ্রামে অবস্থিত।

কিভাবে যাবেন
বাস

শ্যামলী পরিবহন (টেকনিকেল মোবাইল-01865068922, বগুড়া ফোন-051-64155)
নাবিল পরিবহন (কল্যাণপুর মোবাইল-01869811012, বগুড়া মোবাইল-01774976078)
ডিপজল এন্টারপ্রাইজ (কল্যাণপুর মোবাইল-01882004524, বগুড়া মোবাইল-01882004534)
ভাড়া নন এসি ৩৫০ টাকা এসি ১০০০ টাকা

ট্রেনঢাকা কমলাপুর থেকে বগুড়া

রংপুর এক্সপ্রেস ছাড়ে সকাল 9:00 Am পৌঁছায় 3:45 Pm ভাড়া ৪১৫ টাকা
বন্ধ সোমবার

লালমনি এক্সপ্রেস ছাড়ে 10:30 pm পৌঁছায় 5:18 Am ভাড়া ৪১৫ টাকা
বন্ধ শুক্রবার

[ বগুড়া সদর থানা থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরে এটি অবস্থিত। বাস বা সিএনজি যোগে মহাস্তানগড় বাস স্ট্যান্ড আসতে পারেন সেখান থেকে দুই কিলোমিটার দূরে অবস্থিত বেহুলা বাসর ঘর অটোতে বা রিকশায় যেতে পারেন]

কোথায় থাকবেন

বগুড়া শহরে বিভিন্ন মানের হোটেল ও মডেল রয়েছে।

হোটেল আকবরিয়া ,কাজী নজরুল ইসলাম সড়ক, থানা রোড, বগুড়া মোবাইল- 01716179982

হোটেল নাজ গার্ডেন ছিলিমপুর বগুড়া ফোন-051-62468,051-66655

পর্যটন মোটেল শেরপুর মোড়, বনানী, বগুড়া ফোন-051-67024-7

[ এখানে চার তারকা হোটেল রয়েছে,  ভাড়া ৫০০-৬০০০ টাকার মধ্যে পড়বে]

Article Categories:
রাজশাহী
banner

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।